অ্যাসেম্বলিতে বাস্তবায়ন হচ্ছে না জাতীয় স্লোগান জয় বাংলা।

 মুন্সিগঞ্জে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে উপেক্ষিত হচ্ছে রাষ্ট্রীয় নির্দেশনা  ”

তুষার আহাম্মেদ – মুন্সিগঞ্জের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে সমাবেশ (অ্যাসেম্বলি) শেষ হওয়ার পর দেয়া হয়না জাতীয় স্লোগান জয় বাংলা । জেলার বিভিন্ন উপজেলায় খোঁজ নিয়ে জানায়ায়, রাষ্ট্রীয় নির্দেশনা অনুযায়ী সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে প্রত্যেক দিনের সমাবেশ (অ্যাসেম্বলি) শেষ হওয়ার পর শিক্ষকরা ও ছাত্রছাত্রীরা ‘জয় বাংলা’ স্লোগান উচ্চারণ করবেন । তবে রাষ্ট্রিয় এই নির্দেশনা বাস্তবায়ন হচ্ছে না মুন্সিগঞ্জের ৬টি উপজেলার শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান গুলোতে।

জানায়ায় , জয় বাংলা’কে বাংলাদেশের জাতীয় স্লোগান করে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে গত ২মার্চ  প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়। প্রজ্ঞাপনে বলা হয়, ‘জয় বাংলা’ বাংলাদেশের জাতীয় স্লোগান হবে। সাংবিধানিক পদাধিকারীরা, দেশে ও দেশের বাইরে কর্মরত সরকারি, স্বায়ত্তশাসিত ও সংবিধিবদ্ধ সংস্থার কর্মকর্তা/কর্মচারীরা সব জাতীয় দিবস উদযাপন এবং অন্যান্য রাষ্ট্রীয় ও সরকারি অনুষ্ঠানে বক্তব্যের শেষে “ জয় বাংলা ” স্লোগান উচ্চারণ করবেন। প্রজ্ঞাপনে আরও জানানো হয় , সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে প্রত্যেক দিনের সমাবেশ (অ্যাসেম্বলি) শেষ হওয়ার পর ছাত্রছাত্রীরা ও শিক্ষকরা জয় বাংলা স্লোগান উচ্চারণ করবেন। এবং সভা-সেমিনারে বক্তব্যের শেষে শিক্ষকরা ও ছাত্রছাত্রীরা “ জয় বাংলা” স্লোগান উচ্চারণ করবেন। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের সভা-সেমিনারে শিক্ষকরা ও ছাত্রছাত্রীরা বক্তব্যের শেষে জয় বাংলা স্লোগান উচ্চারণ করলেও প্রত্যেক দিনের সমাবেশ ( অ্যাসেম্বলি ) শেষ হওয়ার পর উচ্চারণ করছে না জাতীয় স্লোগান “ জয় বাংলা ” ।

গত সোমবার জেলার সিরাজদিখান উপজেলার ইছাপুরা সরকারি মডেল উচ্চ বিদ্যালয়ে সরেজমিনে দেখাযায়, সকাল ১০টায় ছাত্রছাত্রী ও শিক্ষকদের অংশগ্রহনে শারীরিক চর্চার মধ্যদিয়ে সমাবেশ ( অ্যাসেম্বলি ) শুরু হয় ।পরে পবিত্র কোরআন তেলাওয়াত ও গীতাপাঠ এর পরে শপথ বাক্য পাঠ করানো হয়। এরপর জাতীয় সংগীত পরিবেশনের সময় জাতীয় পতাকা উত্তোলন করেন প্রতিষ্ঠানটির সহকারী প্রধান শিক্ষক মো জামাল হোসেন মিয়া। পতাকা উত্তলনের পরে সমাবেশ ( অ্যাসেম্বলি ) শেষে “ জয় বাংলা ” স্লোগান উচ্চারণ না করেই ছাত্রছাত্রীরা যে যার মতন শ্রেণী কক্ষে পাঠদান গ্রহণের জন্যে চলে যায়। উপস্থিত ছাত্রছাত্রী ও শিক্ষকদের কারই কন্ঠে উচ্চারণ হয়নি জয় বাংলা স্লোগান। এবিষয়ে ইছাপুরা সরকারি মডেল উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী প্রধান শিক্ষক মো. জামাল হোসেন মিয়া জানান, আসলেই এইটা ভুল হয়েগেছে,তবে সামনে থেকে সমাবেশ ( অ্যাসেম্বলি ) শেষে আমরা “ জয় বাংলা ” স্লোগান উচ্চারণ করবো।

খোঁজ নিয়ে জানায়ায়, জেলার ৬টি উপজেলায় প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে শুরু করে উচ্চ বিদ্যালয়, মাদ্রাসা, কিন্ডারগার্টেন কোনো শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানেই সমাবেশ ( অ্যাসেম্বলি ) শেষে রাষ্ট্রিয় নির্দেশনা অনুযায়ী জয় বাংলা স্লোগান উচ্চারণ করা হয়না। রাষ্ট্রিয় নির্দেশনা অনুযায়ী জয় বাংলা স্লোগান উচ্চারণ এর বিষয়ে জানতে চাইলে সিরাজদিখান উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা কাজী আব্দুল ওয়াহিদ মো: সালহে বলেন, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে অ্যাসেম্বলি শেষে জয় বাংলা স্লোগান দেয়ার নির্দেশনা আমাদের রয়েছে। উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা বেলায়েত হোসেন জানান, জয় বাংলা জাতীয় স্লোগান। প্রজ্ঞাপন অনুযায়ী আমি সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের অ্যাসেম্বলি শেষে জয় বাংলা স্লোগান দেয়ার নির্দেশ দিয়ে দিয়েছি। যদি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে অ্যাসেম্বলি শেষে জয় বাংলা স্লোগান না উচ্চারণ করা হয়, তা হলে অবশ্যই সেই প্রতিষ্ঠানের ব্যাপারে যথাযথ ব্যবস্থা নেয়া হবে। তবে উপজেলার একাধিক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের প্রধান শিক্ষক জানান এখনো আমরা এই বিষয়ে কোনো নির্দশনা পাইনি।

মুন্সিগঞ্জ জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা মো:  বেনজীর আহম্মদ জানান, অ্যাসেম্বলি শেষে “ জয় বাংলা ” স্লোগান দেয়ার বিষয়টি আমার জানানেই। আমরা একটা অডার পেয়েছিলাম, আমরা যেই ব্যক্ততা দেই ,ব্যক্তিতা শেষে আমাদের “ জয় বাংলা ” বলতে হবে। প্রজ্ঞাপনে অ্যাসেম্বলি শেষে জয় বাংলা স্লোগান উচ্চারণ করার কথা উল্লেখ আছে বললে তিনি প্রতিবেদককে বলেন আপনি আমাকে একটু প্রজ্ঞাপন টা দিতে পারেন ? তাহলে আমি অডার টা করিয়ে দিতাম , যাতে জেলার সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে অ্যাসেম্বলি শেষে জাতীয় স্লোগান “ জয় বাংলা “ উচ্চারণ করে।

উল্লেক্ষ, জয় বাংলা’কে জাতীয় স্লোগান হিসেবে ঘোষণা চেয়ে ২০১৭ সালে হাইকোর্টে রিট করেন সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী বশির আহমেদ। প্রায় আড়াই বছর আগে এই রিট আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে হাইকোর্ট কারণ দর্শানোর নোটিশ জারি করেছিলেন। “ জয় বাংলা’কে কেন জাতীয় স্লোগান হিসেবে ঘোষণা করা হবে না―এই মর্মে আদালতের সেই নোটিশের ওপর দীর্ঘ সময় শুনানি হয়েছে। এর আগে ২০২০ সালে ‘ জয় বাংলা ’ বাংলাদেশের জাতীয় স্লোগান হবে বলে রায় দেন হাইকোর্ট। এবং ২০২২ সালের ২ মার্চ মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে জয় বাংলা’কে জাতীয় স্লোগান করে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়। গত ২০ ফেব্রুয়ারি মন্ত্রিসভা বৈঠকের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী সরকার এ নির্দেশনা জারি করেছে বলে প্রজ্ঞাপনে জানানো হয়। বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের সময় ১৯৭১ সালে দলমত নির্বিশেষে এই জয় বাংলা স্লোগান প্রধান স্লোগান হিসেবে ব্যবহার হয়েছে। সে বিষয়টি আবেদনের মূল ভিত্তি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *