গণআন্দোলনে জাতীয় পার্টি (জাফর) ও বিএনপির ঐকমত্য

অনলাইন ডেস্ক: বর্তমান সরকারের পদত্যাগ ও নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে জাতীয় সংসদ নির্বাচনের দাবিতে এক সাথে গণআন্দোলন গড়ে তোলার বিষয়ে ঐকমত্যে পৌঁছেছে জাতীয় পার্টি (জাফর) ও বিএনপি।

বুধবার (৮ জুন) সন্ধ্যায় গুলশানে বিএনপি চেয়ারপারসনের কার্যালয়ে জাতীয় পার্টির (জাফর) প্রতিনিধি দলের সাথে বৈঠকের পর সাংবাদিকদের সাথে আলাপকালে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর ও জাপা চেয়ারম্যান মোস্তফা জামাল হায়দার এ তথ্য নিশ্চিত করেন।

মির্জা ফখরুল বলেন, বর্তমানে ফ্যাসিবাদী সরকার গণতন্ত্রকে হত্যা, মানুষের অধিকার হরণ করা, বাক স্বাধীনতা হরণ করা, অর্থনীতি ধ্বংস করা, রাষ্ট্রের প্রতিটি প্রতিষ্ঠানকে ধ্বংস করার যে ভয়াবহ কর্মসূচি হাতে নিয়েছে তার বিরুদ্ধে জনগণকে সংগঠিত করে একটি কার্যকরী আন্দোলন গড়ে তোলার জন্য আমরা প্রায় সব রাজনৈতিক দলগুলোর সাথে কথা বলছি। তারই অংশ হিসেবে আজকে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান মোস্তফা জামাল হায়দার সাহেবের নেতৃত্বে ১০ সদস্যের একটি প্রতিনিধি দল এসেছিলেন। আমরা দেড় ঘণ্টা ফলপ্রসূ আলোচনা করেছি।

তিনি বলেন, আমাদের মূল দাবি দেশনেত্রী খালেদা জিয়াকে অন্যায়ভাবে আটক করে রাখা হয়েছে, তার মুক্তি, আমাদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানসহ ৩৫লাখ নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে যে মামলা দিয়ে হয়রানি করা হচ্ছে, তারেক রহমানকে নির্বাসিত করে রাখা হয়েছে সেই মামলা প্রত্যাহার এবং এই সরকারের পদত্যাগ। সংসদ বিলুপ্ত করা, নিরপেক্ষ সরকারের হাতে ক্ষমতা হস্তান্তর। সেই নিরপেক্ষ সরকারের মাধ্যামে একটি নতুন নির্বাচন কমিশন গঠন করে নতুন কমিশনের অধীনে নির্বাচনে রাজনৈতিক দলগুলোর অংশগ্রহণের মধ্যে দিয়ে নতুন পার্লামেন্ট গঠন করা এবং নতুন একটি সরকার গঠন করা। এসব বিষয়ে আমরা একমত হয়েছি।

এ সময় জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান মোস্তফা জামাল হায়দার বলেন, আজকে দেশে বিরাজমান রাজনৈতিক পরিস্থিতিতে এই স্বৈরশাসনের বিরুদ্ধে একটা ব্যাপক ঐক্য গড়ে তোলার জন্য যার যা কিছু করা সম্ভব তার সম্ভাব্য দিকগুলো নিয়ে আলোচনা করেছি। আমরা একটি ঐকমত্যে পৌঁছতে সক্ষম হয়েছি।

তিনি বলেন, বর্তমান এই স্বৈরাশাসকবিরোধী যে কোনো রাজনৈতিক দল, সংগঠন, রাজনৈতিক শক্তি তাদের সকলকে ঐক্যবদ্ধ করে একটা সংযুক্ত রাজনৈতিক আন্দোলন কর্মসূচির দিকে কিভাবে অগ্রসর হতে পারি, সে প্রচেষ্টা চালিয়ে যাবো। আমাদের সর্বপ্রথম এবং প্রধান দাবি হলো এই সরকারের পদত্যাগ। এর বাইরে অন্যকোনো বিষয় উত্থাপন করার দাবি নেই। প্রথমত এই সরকারকে ক্ষমতা থেকে চলে যেতে হবে। তারপর নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচন, এই পার্লামেন্ট ভেঙে দিয়ে একটি সুষ্ঠু, অবাধ নির্বাচন। এই লক্ষ্যে আমরা সরকারবিরোধী দেশের সমস্ত শক্তিকে ঐক্যবদ্ধ করার জন্য প্রচেষ্টা চালিয়ে যাবো। সে লক্ষ্যে যেকোনো ধরণের পদক্ষেপ আমরা একসাথে গ্রহণ করবো।

এ সময় বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ২০ দলীয় জোটের সমন্বয়ক নজরুল ইসলাম খান, জাতীয় পার্টির মহাসচিব আহসান হাবীব লিংকন, প্রেসিডিয়াম সদস্য নওয়াব আলী আব্বাস, সেলিম মাস্টার, অ্যাডভোকেট মজিবুর রহমান, মাওলানা রুহুল আমীন, যুগ্ম-মহাসচিব এএসএম শামীম, কাজী মো: নজরুল ও দফতর সম্পাদক গোলাম মোস্তফা উপস্থিত ছিলেন।

বৃহত্তর গণআন্দোলন গড়ে তোলার লক্ষ্যে ইতোমধ্যে আরো পাঁচটি দলের সাথে বৈঠক করেছে বিএনপি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *