টোল দিয়ে পদ্মা সেতু প্রথম পাড়ি দিলো মোটরসাইকেল

দেশের বৃহত্তম যোগাযোগ অবকাঠামো পদ্মা সেতু দিয়ে রোববার ভোর ৬টায় যানবাহন চলাচল শুরু হয়েছে। প্রথম যে বাহনটি পদ্মা সেতুর টোল দিয়ে প্রবেশ করে সেটি একটি মোটরবাইক। ১০০ টাকা টোল দিয়ে সকাল ৬টায় প্রথম সেতুতে মোটরসাইকেল দিয়ে যাত্রা শুরু হলো পদ্মা সেতুর।

অপরদিকে সকাল থেকে যানবাহন চলাচলের জন্য সকল ধরনের প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে কর্তৃপক্ষ। রোববার পদ্মা সেতু প্রকল্পের পরিচালক মো: শফিকুল ইসলাম এ তথ্য জানিয়েছেন। উদ্বোধনের পরে শনিবার কোনো যানবাহন চলাচল করতে দেয়া হয়নি। রোববার সকাল ৬টা থেকে যানবাহন চলাচলের জন্য খুলে দেয়া হয়েছে।

শফিকুল ইসলাম আরো জানান, আজকের দিন যানবাহনের ব্যাপক চাপ। আমাদের টোলপ্লাজার কর্মীদেরও সেভাবে প্রশিক্ষণ দেয়া হয়েছে। আশা করছি, তারা ভিড় সামলাতে পারবে। এ ছাড়া সেতু রক্ষণাবেক্ষণ ও নিরাপত্তার জন্যও সব ধরনের প্রস্তুতি নেয়া আছে।

ভোর ৬টায় প্রথম পদ্মাসেতুতে আরোহণকারী যাত্রী হলো একজন মোটরবাইকার। নাম তার মিজানুর রহমান। দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ থেকে তিনি ফরিদপুরের উদ্দেশে গেছেন। পুনরায় তিনি এই সেতু দিয়েই ফিরবেন। পরে তিনি আরো ১০০ বাইকের একটি মোটরবাইক বহর নিয়ে পদ্মা সেতু পারি দেবেন বলে জানিয়েছেন।

তিনি জানান, ‘টোলের ১০০ টাকা দিয়ে প্রথম যাত্রী হয়ে পদ্মা সেতু পারি দিতে পেরে আমি মহাআনন্দিত। আমার আশা ছিল সর্বপ্রথম আমি পদ্মা সেতুতে ওঠব। আমার আশা আল্লাহ পূরণ করেছে। এখন আর মাওয়া ঘাটে এসে ঘণ্টার পর ঘণ্টা ফেরির জন্য অপেক্ষা করতে হবে না, দুর্ভোগও পোহাতে হবে না কাউকে। ‘

মিজানের পর একটি ট্রাক নিয়ে টোল দিয়ে উঠে পদ্মা সেতুতে। চালকের নাম মো: জহিরুল হাসান। তিনি জানান, তার স্বপ্ন পূরণ হয়েছে। আজ পদ্মা সেতু দিয়ে ট্রাক চালিয়ে যাচ্ছি এ যেন স্বপ্নের মতো মনে হচ্ছে। তিন দিন, সাত দিন- ঘাটে আর অপেক্ষা করতে হবে না।

উল্লেখ্য, সেতুতে টোলের হার ইতোমধ্যে নির্ধারিত হয়েছে। ছোট বাসে এক হাজার ৪০০ টাকা, মাঝারি বাসে দু’হাজার টাকা ও বড় বাসে দু’হাজার ৪০০ টাকা টোল দিতে হবে। ছোট ট্রাকের টোল এক হাজার ৬০০ টাকা, মাঝারি ট্রাকে দু’হাজার ১০০ থেকে দু’হাজার ৮০০ টাকা, বড় ট্রাকে পাঁচ হাজার ৫০০ টাকা, এছাড়াও পিকআপের টোল এক হাজার ২০০ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে।

কার ও জিপের টোল ধরা হয়েছে ৭৫০ টাকা, মাইক্রোবাস এক হাজার ৩০০ টাকা। মোটরসাইকেল নিয়ে পদ্মা সেতু পার হতে চাইলে টোল দিতে হবে ১০০ টাকা।

৬ কিলোমিটার দীর্ঘ পদ্মা সেতুর মাধ্যমে দেশের দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের সাথে রাজধানীর সরাসরি সড়ক যোগাযোগ স্থাপিত হল। এই ২১টি জেলার মাওয়া রুট ব্যবহারকারী বাসসহ যানবাহনগুলো এত দিন ফেরিতে পারাপার হত। এখন চলবে সেতুতে চলবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *