প্রাইমারী স্কুলের পরিত্যক্ত ইট হরিলুট মোঃ বাবলু মল্লিক, নড়াইল প্রতিনিধি

প্রাইমারী স্কুলের পরিত্যক্ত ইট হরিলুট মোঃ বাবলু মল্লিক, নড়াইল প্রতিনিধি ঃ নড়াইলের কালিয়া উপজেলার ৬৫ নং ডি এফ রামনগর সরকারী প্রাইমারী স্কুলের ৪ কক্ষ বিশিষ্ট পরিত্যাক্ত সেমী পাঁকা ভবনের প্রায় ৩৫ হাজার ইট ও চালা অকশন ছাড়া হরিলুটের অভিযোগ উঠেছে ওই স্কুলের দপ্তরী কাম পাহারাদার ইউনুচ মোল্যা ও স্কুল কমিটির বিরুদ্ধে। ১৫ জুলাই (শুক্রবার) বিকেলে সরেজমিনে গেলে দেখা যায় সামান্য কিছু ইট সেখানে আছে এবং বাকী ইট স্কুলের উত্তর পাশে ইউনুচ মোল্যা ও তার দাদা মৃত বালা মোল্যার বাড়ীতে বিভিন্ন কাজে খাটানো হয়েছে। খড়ের পালা, মুরগীর বাক্সের নীচে গোসলখানা, ঘরের সামনে ও গোয়ালঘরেও বিছানো হয়েছে ওই স্কুলের আরএকে ও পিএমবি প্রতিকের ইট। এছাড়া ইউনুচ মোল্যা ওই ইট দিয়ে দেওয়াল গেথে প্লাষ্টার করে রেখেছেন এবং শুড়কি করে রেখেছেন তার উঠানে। বাড়ীর উত্তর-পশ্চিম কর্নারে স্তুপাকারে রয়েছে কয়েক হাজার ইট, যাহা স্কুলের ইট বলে প্রতীয়মান হয়। স্থাণীয়দের কাছে ওই ইটের মালিক সম্বন্ধে জানতে চাইলে জানেননা বলে জানান। ইউনুচ মোল্যা ডুমুরীয়া বাদামতলা গ্রামের বাচ্চু মোল্যার ছেলে। স্কুল ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি খান জাহান জানান, এক বছর হলো তিনি সভাপতির দায়িত্ব নিয়েছেন। পরিত্যাক্ত স্কুলের ৫ হাজার ইট দিয়ে স্কুলে রাস্তা করা হয়েছে এবং শহীদ মিনারে হয়ত এক/দেড় হাজার ইট লাগতে পারে। এ ছাড়া অনেক দিন যাবত পরিত্যাক্ত থাকায় রাতের আঁধারে ঘরের ভাঙ্গা অংশ চুরি হয়েছে বলে তিনি জানান। প্রধান শিক্ষক আনন্দ কুমার মজুমদার বলেন, উপজেলা শিক্ষা অফিসারকে অকশন দেওয়ার জন্য বললে তিনি আসেন এবং স্কুলে কাঁদা হয়ে যাওয়ার ব্যপারে কথা বললে তিনি রেজুলেশন জমা দিয়ে রাস্তার কাজে ইট ব্যবহার করেছেন। এছাড়া অল্পকিছু ইট দিয়ে শহীদ মিনারের কাজ করা হচ্ছে, বাকী ইট পাশে রেখে দেওয়া হয়েছে। এ দিকে উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার স্বপন কুমার দাশ বলেন, এ বিষয়ে কোন রেজুলেশন আমি পাইনি এবং সরকারী ইট দিয়ে রাস্তা নির্মানের কোন অনুমতিও তিনি দেননি। এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ আরিফুল ইসলাম বলেন, বিষয়টি আপনাদের মাধ্যমে জানলাম। তদন্ত সপেক্ষে বিধিমোতাবেক ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *