মুন্সীগঞ্জের টঙ্গীবাড়িতে হাত-পা বাঁধা অবস্থায় গাছে ঝুলন্ত বৃদ্ধার মরদেহ উদ্ধার

তুষার আহাম্মেদ –  রাস্তার পাশের গাছের সঙ্গে হাত-পা বাঁধা, ঝুলন্ত অবস্থায় এক বৃদ্ধের মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে।

মুন্সীগঞ্জের টঙ্গীবাড়ি উপজেলার আউটশাহী গ্রামের মানিকের বাড়ির পাশের সড়কের পাশে গাছের সঙ্গে হাত-পা বাঁধা ও গলায় তার লুঙ্গি দিয়ে ঝুলন্ত অবস্থায় গোবিন্দ দাস (৭০) নামের বৃদ্ধের মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। নিহত গোবিন্দ দাস বালিগাঁও দাসপাড়া গ্রামের মৃত গৌরাঙ্গ দাসের ছেলে।

নিহতের স্বজনদের সুত্রে জানাগেছে, গবিন্দ দাস বালিগাও বাজারে মাছের ব্যবসা করতো। সে একই গ্রামে তার মেয়ের বাড়িতে থাকতো। মেয়ের ঘরের আলমারিতে থাকা তার মাছ ব্যবসার ৩০হাজার টাকা নিয়ে ঘর থেকে আজ রবিবার ভোড়ে বের হয় তিনি। বাড়ি হতে পাশের সদর উপাজেলার রিকাবি বাজারে মাছ কিনতে যাচ্ছিল সে। রাস্তার পাশের উৎ পেতে থাকা ছিনতাইকারী চাকু দিয়ে আঘাত করে তাকে হত্যা করতে পারে। সকালে এলাকার লোকজন মৃত অবস্থায় তাকে পরে থাকতে দেখে পুলিশে খবর দেয়। তার হাতসহ বিভিন্ন স্থানে কোপের দাগ রয়েছে। এলাকাবাসী আরো জানান, এর আগেও ওই তৌলকাই- বলই রাস্তায় একাধিক হত্যাকান্ডের ঘটনা ঘটে। পরে পুলিশ পাহাড়া বসায় ও বিদুৎ বাতি লাগানোর পরে এদিকের ছিনতাই বন্ধ হলেও একই রাস্তার আউটশাহী এলাকায় এ হত্যাকান্ডের ঘটনা ঘটল।

মৃতের ভাগিনা সুজন বলেন , তার মামা বালিগাঁও বাজারে মাছ বিক্রি করতো। এজন্য সে মাছ বিভিন্ন মোকাম হতে মাছ ক্রয় করে আনতো। রবিবার ভোরে মাছ ক্রয় করতে গিয়ে আর বাড়ি ফিরেনি সে। পরে তার মরদেহ গাছের সাথে বাধা অবস্থায় উদ্ধার করে পলিশ।

নিহতের নিকট আত্নীয় পান্না দাস বলেন, খবর পেয়ে আমরা ঘটনাস্থলে গিয়ে দেখি গোবিন্দ দাশের লাশ পিছন দিয়ে গাছের সাথে বেধে রেখেছে। ওর হাত পা গাছের সাথে বাধা। গবিন্দ দাস বৃদ্ধ বয়সে কিছুটা পাগলের ন্যায় আচরণ করতো।

টঙ্গীবাড়ী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোল্লা সোহেব আলী বলেন, নিহতের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে। তার পকেটে হতে প্রায় ১৩ হাজার টাকা পাওয়া গেছে। লোকটি বৃদ্ধ তার শরীরে হত্যার মতো কোন আঘাতের চিহ্ন পাওয়া যায়নি। মৃত ব্যক্তির শরীরের হাতের কুনুই ও পায়ের হাঁটুতে কিছুটা রক্তাক্ত ছিল। তবে তার হাতপা গাছের সাথে বাধা ছিলো। মৃত্যুর সঠিক কারণ এখনই নিশ্চিত করা যাচ্ছে না। প্রতিবেদন পাওয়ার পর মৃত্যুর কারণ নিশ্চিত হওয়া যাবে। এ ঘটনায় থানায় অপমৃত্যুর মামলা হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *