মোল্লাকান্দিতে সাবেক চেয়ারম্যানসহ আ.লীগ নেতাকর্মীদের বাড়িঘর ভাঙচুর-লুটপাট

স্টাফ:- মুন্সীগঞ্জের চরাঞ্চলের মোল্লাকান্দি ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি মোস্তফা মোল্লাসহ আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের বাড়িঘর ভাঙচুর ও লুটপাটের অভিযোগ পাওয়া গেছে। সোমবার সকালে মোল্লাকান্দি ইউনিয়নের কংসপুরা গ্রামের মোল্লাবাড়িতে এ ঘটনা ঘটে। গত ২৮ শে নভেম্বর মোল্লাকান্দি ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচন ঘিরে পরাজিত চেয়ারম্যান প্রার্থীর সমর্থকরা এলাকা ছাড়া হয়ে পড়ে।
মোলাকান্দি ইউনিয়নটি চেয়ারম্যান রিপন পাটোয়ারির গ্রুপের নিয়ন্ত্রণে চলে যায় বলে গুঞ্জন শুনা যাচ্ছে। নাম প্রকাশ না করার শর্তে পুরাতন কাচারির বাঘের খাচায় চায়ের আড্ডারত অবস্হায় মোল্লাকান্দির একাধিক রাজনৈতিক যুবক বলেন, মহাসিন হক কল্পনা ও তার লোকজন যে ভাবে গত ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে মোল্লাকান্দির মাটি থেকে আমাদেরকে ককটেল ও গুলি নিক্ষেপ এর মধ্য দিয়ে এলাকা থেকে বিতাড়িত করেছিল তারা আজ মুন্সীগঞ্জের মাটিতে ভাসমান অবস্হায় পথে,ঘাটে,মাঠে গ্রাম ছাড়ার মধ্যদিয়ে মানবতার  দিন জাপন করছে। মোল্লাকান্দি ইউনিয়নের রাজনীতিতে কাতার থেকে টাকা আসবে আর মোল্লাকান্দির মাটিতে চৌউরা-চৌউরা ফাইটও হবে, এটাই মোল্লাকান্দির নৃশংস রাজনীতি বলে আমরা মনে করছিনা ।
গ্রাম থেকে বিতাড়িত মোল্লাকান্দি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক চেয়ারম্যান মোস্তফা মোল্লার ছেলে আজহারউদ্দিন জানান, সকালে তাদের এবং বাড়ির ফজল মোল্লা, শাহজাহান মোল্লার বাড়িতে ৪ নং ওয়ার্ড মেম্বার আইনউদ্দিন ওরফে রাসেল ও রাসেলের ভাই মোসলেমের নেতৃত্বে লোকজনবিহীন বাড়িতে হামলা চালানো হয়। এ সময় সন্ত্রাসীরা তাদের বাড়িঘর ভাঙচুর ও লুটপাট করে। রাসেল ও মোসলেম এলাকার চিহ্নিত মাদক কারবারী এবং তাদের বিরুদ্ধে একাধিক মামলা রয়েছে।
গত বছরের ২৮শে নভেম্বর মুন্সীগঞ্জ সদরের চরাঞ্চলের মোল্লাকান্দি ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচন হয়। এই নির্বাচনে আওয়ামী লীগ সমর্থিত সাবেক চেয়ারম্যান মহসিনা হক কল্পনা পরাজিত হলে জয়ী চেয়ারম্যান রিপন হোসেন পাটোয়ারির সমর্থকদের দখলে চলে যায় মোল্লাকান্দি ইউনিয়ন। ইউনিয়নের কয়েকটি গ্রামের ৩ শতাধিকের বেশি লোক গ্রামছাড়া হয়ে পড়ে। এসব গ্রামছাড়া লোকদের গ্রামে ফিরিয়ে নেয়ার জন্য স্থানীয় পুলিশ প্রশাসনের কাছে ভুক্তভোগীরা যোগাযোগ করেও কোনো প্রতিকার পাননি বলে অভিযোগ।
এরপর গত ২রা মার্চ সকালে গ্রামছাড়া লোকজন গ্রামে উঠতে গেলে হামলার শিকার হয়। এ সময় উভয়পক্ষের মধ্যে হামলা পাল্টা হামলা ও ককটেল বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। এরপর উল্টো গ্রামছাড়া লোকজনের বিরুদ্ধে ও ইউসুফ ফকিরসহ যারা এলাকায় যায়নি তাদের বিরুদ্ধে থানা মামলা নেয় বলে অভিযোগ রয়েছে।
এ ব্যাপারে মুন্সীগঞ্জ সদর থানার ওসি আবু বক্কর সিদ্দিক জানান, মোল্লাকান্দিতে বাড়িঘর ভাঙচুর ও লুটপাটের কোনো খবর তার জানা নেই। এটি অসত্য খবর।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *