শ্রীলঙ্কার অর্থনীতি, রাজনীতি ও সরকার হঠাৎ ভেঙে পড়লো কেন

অনলাইন ডেস্ক: দক্ষিণ এশিয়ার দ্বীপরাষ্ট্র শ্রীলঙ্কা এখন নজিরবিহীন অর্থনৈতিক ও রাজনৈতিক সঙ্কট মোকাবিলা করছে। বিশ্লেষকরা বলছেন, সর্বগ্রাস দুর্নীতি আর ধারাবাহিক অর্থনৈতিক অব্যবস্থাপনায় দেশটিকে তিলে তিলে ধ্বংসের কিনারায় নিয়ে এসেছিলো।

যদিও তিন বছর আগে সবার ধারণা ছিলো যে, শতভাগ শিক্ষিত মানুষের এ দেশটির অর্থনীতি স্থিতিশীল এবং এর মূল ভিত্তি ছিলো পর্যটন থেকে আসা আয় যা ক্রমশ বাড়ছিলো আর রেমিটেন্স।

পেশাগত কাজে গত দুই দশকে কমপক্ষে তিনবার শ্রীলঙ্কা ভ্রমণ করেছেন সাংবাদিক তারেক মাহমুদ। গৃহযুদ্ধ শেষ হওয়ার আগে ও পরে এসব সফরে গিয়ে দেশটি খুব দ্রুতই ব্যাপক অগ্রগতি অর্জন করবে বলেই ধারণা করেছিলেন তিনি।

‘মানুষজনের জীবনযাত্রা, সংস্কৃতি দেখে মনে হচ্ছিলো যে দক্ষিণ এশিয়া অনেকটা ইউরোপের মতো কলম্বো। একটা নাইট লাইফ আছে। ধর্মীয় বৈচিত্র্য আছে। মানুষ জীবনকে উপভোগ করতে জানে। একটা স্মুথ লাইফ। সবকিছু মিলিয়ে এমনটাই মনে হতো।’

বাস্তবতা হলো সেই শ্রীলঙ্কা এখন ধুঁকছে অর্থনৈতিক সঙ্কট আর রাজনৈতিক সহিংসতায় এবং টিকে থাকার জন্য আপ্রাণ লড়ছে দেশটির অর্থনীতি।

যার জন্য দায়ী করা হচ্ছে রাজাপাকসে সরকারের একের পর এক ভুল নীতি, দুর্নীতি আর আর্থিক অব্যবস্থাপনাকে।

সঙ্কটের সূত্রপাত কয়েক দশক আগে থেকেই
দাতা দেশ ও সংস্থা গুলোর ঋণ পরিশোধে নিজের অক্ষমতা প্রকাশের পাশাপাশি শ্রীলঙ্কার বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ প্রায় শূন্যের কোঠায়। খাদ্যপণ্য, জ্বালানি ও ঔষধ সঙ্কট ছাড়াও বিদ্যুৎহীনতার মধ্যেই কাটছে দিনের বেশিরভাগ সময়।

পরিস্থিতি এমন যে, বলা হচ্ছে ১৯৪৮ সালে স্বাধীনতা লাভের পর থেকে এমন সঙ্কটে দেশটি আর কখনো পড়েনি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *