সব কিছুর জন্য আলহামদুলিল্লাহ

১৮ মাস ব্যাপি ডি পি এড প্রশিক্ষণ ২০২০-২০২১ এর হতভাগ্য ব্যাচ ছিলাম আমরা। এতো বড় মহামারীর স্বীকার হবো আমরা কখনো ই ভাবিনি।পুরো পৃথিবী যখন আতঙ্কে তখন সেই আতঙ্কে জয় করে চলছিলো আমাদের ডিপিএড কার্যক্রম। সরাসরি কার্যক্রম বন্ধ হয়ে শুরু হয় অনলাইন কার্যক্রম।যদিও ফাইনাল পরীক্ষা হয় সরাসরি।মানুষের মধ্যে পজিটিভ নেগেটিভ নানান চর্চা চলে আমাদের প্রশিক্ষণ নিয়ে।সবাই মনে করছে অনলাইন হওয়ায় আমরা মনে হয় কোন কাজ ই করি নি যা সম্পূর্ণ ভুল ধারণা। বরং আরও বেশি কাজের পাশাপাশি আমরা একটা করোনা জনিত মানসিক অস্বস্তির মধ্যে দিয়ে যাচ্ছিলাম।যারা ফাঁকিবাজ তাদের কথা আলাদা কেননা ফাঁকিবাজরা অনলাইন কি আর অফলাইনেই বা কি তারা সবক্ষেত্রেই ফাঁকি খোঁজে।যাইহোক আলহামদুলিল্লাহ সে বহুল কাঙ্ক্ষিত পরীক্ষায় অধিকার করি আমি। আর আমরা ঝুঁকি নিয়ে কাজ করেছিলাম বলেই আজ তার পুরুষ্কার পেলাম।আমাদের  গ্রহণ করলাম।দীর্ঘ দিন পরে সবার সাথে আজকে দেখা হয়।সবার আগমনে সেই পুরনো স্মৃতি উজ্জীবিত হয়েছিলো।পি টি আই এর সুপার মেডাম, সহকারী সুপার স্যার ও মেডাম, সব ইন্সট্রাক্টরগণ ও প্রশিক্ষণার্থীগণ আমাকে ঠিক আগের মতো করেই মনে রেখেছেন।কেউ তোতাপাখি,কেউ কাঠবিড়ালি, কেউ ময়না পাখি বলে সম্বোধন করছিলো। অনেকের নাম আমি ভুলে গেলেও তারা আমাকে ঠিকই মনে রেখেছেন। আজকে সবার মুখে মুখে আমার প্রশংসা আর চর্চা ছিলো। এতো এতো ভালোবাসা ও স্নেহ পেয়ে সত্যিই নিজেকে ধন্য মনে করছি।আর আমার কৃতিত্বের পিছনে আমার পরিবার,কলিগ ও আমার প্রশিক্ষণের ব্যাচমেটরা সমান অংশীদার। তাদের অনুপ্রেরণা,সহযোগিতা আর ভালোবাসা না পেলে আজ এ পর্যন্ত আমি আসতে পারতাম না। আজকে আমার এই খুশির দিনে সবাই পাশে থাকলেও ছোট বোন টি পাশে ছিলো না।কলিজা তোকে আজ অনেক মিস করেছি।আশাকরি ইন্সাল্লাহ দ্রুত ই আমরা একত্রিত হবো। সবাই দোয়া করবেন এভাবেই যেন সকলের মন জয় করে সকল ক্ষেত্রে সফলতা অর্জন করতে পারি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *